শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে এলাকাবাসীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে জলাবদ্ধতা নিরসনে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করেছেন উপজেলা প্রশাসন। সোমবার (৮ জুলাই) দুপুরে পৌরশহরের নয়ানিকান্দা গরুহাটি এলাকায় নালিতাবাড়ী-নকলা মহাসড়ক সংলগ্ন স্থানে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়। এতে নেতৃত্ব দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ রানা। সূত্র জানায়, পৌশহরের অদুরে নয়ানিকান্দা গরুহাটি বাইপাস মহাসড়কের পূর্ব পাশে ব্রিজের ধার ঘেঁষে পানি চলাচলের পথ বন্ধ করে মাটি ভরাট ও স্থাপনা তৈরি করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক উপ-প্রচার সম্পাদক ও ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক তাকিজুল ইসলাম তারা। মহাসড়ক সংলগ্ন সড়ক ও জনপথ বিভাগের জায়গার সাথে মিলিয়ে তার ব্যক্তিগত জমি ভরাট করায় পানি চলাচলে বিঘœ ঘটে। চলতি বর্ষা মৌসুমে ভরাটকৃত জমির উজানে বৃষ্টির পানি জমে তৈরি হয় জলাবদ্ধতা। এর ফলে উজানে থাকা প্রায় ১শ একর জমিতে আমন ধানের আবাদ নিয়ে শঙ্কায় পড়েন সংশ্লিষ্ট কৃষকরা। এমতাবস্থায় সম্প্রতি দুর্ভোগের বিষয়টি তুলে ধরে কতিপয় ব্যক্তি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে সোমবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ রানা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও ভরাটকৃত জমি উদ্ধারে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করেন। এসময় শ্রমিক ও স্কেভেটর দিয়ে অবৈধ স্থাপনা ভেঙে ফেলার পাশাপাশি ভরাটকৃত জমি খনন করে পানি চলাচলের ব্যবস্থা করা হয়। অভিযানকালে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী মোশারফ হোসেন, পৌর মেয়র আবুবক্কর সিদ্দিকসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন। এ বিষয়ে তাকিজুল ইসলাম তারা জানান, আমার জমির সামনে যে জায়গাটুকু রয়েছে তা সড়ক ও জনপথ বিভাগের। স্বাভাবিকভাবেই সামনের জায়গা অনেকেই ব্যবহার করেন। এই জায়গা সরকারের প্রয়োজনে যে কোন সময় চাইলে নিতে পারে। কাজেই এ নিয়ে আমার কোন আপত্তি বা অভিযোগ নেই। নালিতাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ রানা জানান, নালিতাবাড়ী পৌরসভাধীন এলাকায় জলাবদ্ধতা তৈরি হচ্ছিল। এর ফলে মানুষ দুর্ভোগে পড়েছিল এবং কৃষি জমিতে জলাবদ্ধতা তৈরি হচ্ছিল। বিষয়টি নিয়ে অভিযোগ করায় আমরা এর সত্যতা পেয়েছি এবং ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চালিয়েছি ও বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নিয়েছি।