You dont have javascript enabled! Please download Google Chrome!

হালুয়াঘাটে এক প্রতিবন্ধির পিতার বোবা কান্না

ওমর ফারুক সুমন, হালুয়াঘাট(ময়মনসিংহ)থেকেঃ  ১০ টেহা কেজির চাইল আইছে, আমি কইছি একটা কার্ড দেইন, দেইনাই। কইলাম আমার প্রতিবন্ধি মেয়েডারে কিছু দেইন। চেয়ারম্যান আমারে কয়-আপনি পরিষদ থেইকা কিছু পাইতাইন না। শেষ পর্যন্ত জান ভিক্ষা চাইছি। আমি চেয়ারম্যানের এই বোর্ড ঘরো বছরে তিনবার-চারবার আইছি। চেয়ারম্যানরে আর কেরানীরে তিনবার চারবার আমার বাড়িতে নিছি। কয়ছি আমার প্রতিবন্ধি মেয়েডারে দেইখা যান। তিনি কন কার্ড আইলে ব্যাবস্থা কইরা দিমু।

৫ বৎসর ধইরা খালি কার্ড আইতাছেই। এই কথাগুলো বলেন আমতৈল ইউনিয়নের বাহির শিমুল গ্রামের এক প্রতিবন্ধি মেয়ের পিতা নুর-ইসলাম(৬২)। তার এক ছেলে ও ২০ বৎসরের এক মেয়ে। মেয়ে প্রতিবন্ধি আর ছেলে পাগল। স্ত্রী জোসনারা খাতুন সেও অচল হয়ে ঘরে পড়ে রয়েছেন।

নুর-ইসলাম সরকারী জমিতে থাকেন। এই প্রতিবন্ধি মেয়ের পিতা তার হাবাগোবা মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে হালুয়াঘাট প্রেসক্লাবে উপস্থিত হয়ে তার আবেগতাড়িত কথাগুলো ব্যক্ত করেন। তিনি তার পাগল পুত্র সম্পর্কে বর্ণনা করতে গিয়ে বলেন- ২ বৎসর পর্যন্ত পাগল পুলাডারে শিকল লাগাইয়া রাখছি। এরপর একদিন লুঙ্গি পইরা গোসলের লেইগা যে গেছে আর ফিইরা আহেনাই। তিনি বলেন-বাবা আমি খাটবার পাইনা, হাই প্রেসার। হার্টেরও সমস্যা, বেদনা যহন উডে তহন আর থাকবার পাইনা। আমি আইনের কাছে আইছি একমাত্র জান ভিক্ষার জন্যে। আমার ঘরে পাগল পোলার ঘরের ছোট দুইডা নাতীন আছে। নাতীন দুইডারে নিয়া খুব কষ্ট করতাছি। চাইয়া মাইগ্যাই খাই বেশি। সময় সময় কংশ নদীটে মাছ মাইরাও খাই।

নুর-ইসলামের এই বুকভরা আর্তনাধ চেয়েরম্যানের কর্ণকোহরে পাঁচ বৎসরেও প্রবেশ করেনি। শুধু একটি কার্ডের আশায় চেয়ারম্যানের দ্বারে দ্বারে বছরের পর বছর ঘুরে চলছেন। কার্ড আর তার ভাগ্যে জুটেনি।

এই বিষয়ে আমতৈই ইউনিইয়নের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম শফিকের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন-রিপোর্ট করলেই কি কার্ড পাওয়া যায়। আমি বললাম এই প্রতিবন্ধি মেয়ে নুরজাহানের পিতা একটি কার্ডের জন্যে আপনার কাছে প্রার্থী। আমাদের দায়িত্ব শুধু সত্য জিনিসটা প্রকাশ করা। কার্ডতো আপনারা দিবেন। পরে দেখব, এই বলে ফোন কেটে দেন।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের

error: Alert: কপি হবেনা যে !!