স্যাটেলাইট যাচ্ছে মহাকাশে । লাইভ দেখাবে শেরপুর ডিসি অফিস

দেশের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ বঙ্গবন্ধু- ১ মহাকাশে উৎক্ষেপণের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। কয়েক দফা তারিখ পরিবর্তনের পর শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেপ ক্যানাভেরাল লঞ্চপ্যাড থেকে স্থানীয় সময় বিকেল ৪টায় (বাংলাদেশ সময় শুক্রবার রাত ৩টা) এটি উৎক্ষেপণের কথা। বিশেষ এ মুহূর্তের সাক্ষী হতে অনেকেই চেয়ে আছেন টেলিভিশন কিংবা অনলাইন দুনিয়ায়। শেরপুর জেলা প্রশাসকের অায়োজনে আজ দিবাগত ভোর ২.১২ মিনিট থেকে ৪.২২ মিনিট পর্যন্ত বাংলাদেশ টেলিভিশন (বিটিভি) এর মাধ্যমে উৎক্ষেপণ অনুষ্ঠান সরাসরি সম্প্রচার করা হবে।

শেরপুরের সাধারণ মানুষের জন্য আজ ডিসি উদ্যানে এই আয়োজন করা হয়েছে বলে জানা গেছে। বড় পর্দা (প্রজেক্টর) এর মাধ্যমে বিটিভিতে প্রচারিত অনুষ্ঠানটি সরাসরি দেখবে শেরপুরের সাধারণ মানুষ।

বঙ্গবন্ধু-১ কবে নাগাদ পৌঁছাবে তার নিজস্ব কক্ষপথে; সে বিষয়ে অনেকের আগ্রহ রয়েছে। প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা বলছেন, উৎক্ষেপণের ৩০ দিনের মধ্যে এটি নিজস্ব অরবিট বা কক্ষপথে পৌঁছাবে।

এছাড়া পুরো উৎক্ষেপণ প্রক্রিয়া শেষ হবে দুটি ধাপে। প্রথম ধাপ, লঞ্চঅ্যান্ড আরলি অরবিট ফেজ (এলইওপি) এবং দ্বিতীয় ধাপ হচ্ছে স্যাটেলাইট ইন অরবিট।

গত বছরের ১৬ ডিসেম্বর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের দিনক্ষণ ঠিক করা হলেও শেষ পর্যন্ত তা ভেস্তে যায়। ওই সময় যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যে হারিকেন আরমা আঘাত হানে। এতে প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি হওয়ায় স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ পিছিয়ে দেয়া হয়। পরে ৫ মে উৎক্ষেপণের দিনক্ষণ ঠিক করা হয়।

স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণে আবহাওয়া অনুকূলে না থাকায় এবারও তারিখ পিছিয়ে ৭ মে নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু এদিনও আবহাওয়া প্রতিকূলে থাকতে পারে এমন আশঙ্কায় স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের সিদ্ধান্ত পিছিয়ে দেয়া হয়। তার আগে ৪ মে (শুক্রবার) বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর পরীক্ষামূলক সফল উৎক্ষেপণ চালানো হয়।

ওইদিন অরল্যান্ডোর কেনেডি স্পেস সেন্টারে সন্ধ্যা ৭টা ২৫ মিনিটে পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণ চালানো হয় ফ্যালকন-৯ রকেটের। এসময় কেনেডি স্পেস সেন্টারের ব্লক ৫ থেকে ধোঁয়া উড়তে দেখা যায়।

পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণের পর তথ্য পর্যালোচনা করে স্পেসএক্স। ফলাফল ইতিবাচক হওয়ায় ১০ মে বঙ্গবন্ধু-১ মহাকাশে ডানা মেলবে বলে জানায়।

উল্লেখ্য, স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১ মহাকাশে পাঠানোর লক্ষ্যে রাশিয়ার উপগ্রহ কোম্পানি ইন্টারস্পুটনিকের কাছ থেকে কক্ষপথ (অরবিটাল স্লট) কেনে বাংলাদেশ। ২০১৫ সালের ১৫ জানুয়ারি রাশিয়ার কাছ থেকে মহাকাশের ১১৯ দশমিক ১ পূর্ব দ্রাঘিমায় দুই কোটি ৮০ লাখ মার্কিন ডলারে (বাংলাদেশি প্রায় ২১৯ কোটি টাকায়) কেনা হয়েছে এ স্লট।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের