You dont have javascript enabled! Please download Google Chrome!

শ্রীবরদীতে পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় গ্রেফতার -১


শ্রীবরদী থানা পুলিশের এএসআই রফিকুল ইসলাম ও এসআই আব্দুল হান্নানের উপর হামলার ঘটনায় উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহবায়ক জিয়াউল হক জেনারেলকে গ্রেফতার করা হয়েছে। রোববার রাতে শ্রীবরদী চৌরাস্তা মোড়ে কর্তব্যরত ওই দুই পুলিশ সদস্যের উপর হামলার ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় মুহুর্তেই পৌর শহের উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হয়। এসময় পৌর শহরে পুলিশের টহল জোড়দার করা হয়। এ ঘটনায় এএসআই রফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে সুনির্দিষ্ট ভাবে ১২ জন ও অজ্ঞাতনামা ৮-১০ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেছে।

পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা যায়, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এলাকায় কয়েকজন যুবক প্রায়ই মাদক সেবন করে। এ নিয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ থানায় অভিযোগ করে। অভিযোগের আলোকে রোববার বিকালে ওসি রহুল আমিন তালুকদারের নির্দেশে এএসআই রফিকুল ইসলাম ও আব্দুল হান্নান হাসপাতাল চত্বর থেকে মাদকসেবী সন্দেহে কয়েকজন যুবককে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। এসময় ওই যুবকদের সঙ্গে পুলিশের বাগবিতন্ডা হয়।পরে তাদেরকে প্রাথমিক জিজ্ঞাবাদ শেষে হাসপাতাল চত্বরে না যাওয়ার শর্তে মুচলেকা দিয়ে অভিভাবকদের নিকট হস্তান্তর করে।

অপরদিকে রোববার দুপুরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে উপজেলার টেঙ্গর পাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের বিদায় অনুষ্ঠানে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এসময় মেহেদী নামে একজন এসএসসি শিক্ষার্থী ও শফিকুল এবং আনোয়ার নামে দুই শিক্ষক আহত হয়। পরে মেহেদীর মা মরিয়ম বেগম বাদী হয়ে কয়েকজনকে আসামী করে শ্রীবরদী থানায় একটি মামলা দায়ের করে।

এই দুই ঘটনার জের ধরে সন্ধ্যা ৭ টার দিকে পুলিশের এএসআই রফিকুল ইসলাম ও আব্দুল হান্নান পৌর শহরের চৌরাস্তা মোড় এলাকায় কর্তব্য পালন করতে গেলে কয়েকজন যুবক ওই পুলিশ সদস্যদেরকে মারধর করে। এসময় এএসআই রফিকুল ইসলামের মোবাইল ছিনিয়ে নেয় হামলাকারীরা। খবর পেয়ে থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে আহত অবস্থায় ওই দুই পুলিশ সদস্যকে উপজেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এই ঘটনায় ওই স্থান থেকে উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহবায়ক জিয়াউল হক জেনারেলকে আটক করা হয়।

উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক মেরাজ উদ্দিন চৌধুরী জানান, পৌর শহরের চৌরাস্তা মোড়ে পুলিশের সাথে কয়েকজন স্থানীয় যুবকের বাগবিতন্ডা ও ধস্তাধস্তি হয়েছে। তারা কেউ ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত না। আটককৃত জিয়াউল হক জেনারেল এই ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন না। ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্ত স্বাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হোক।

শ্রীবরদী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ রহুল আমিন তালুকদার বলেন, কর্তব্যরত পুলিশ সদস্যদের উপর হামলার ঘটনায় দুই পুলিশ সদস্য আহত হয়। এব্যাপারে পৃথক দুটি মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় ওই স্থান থেকে একজনকে গ্রেফতার করা হয়। বাকীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পৌর শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

 

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের

error: Alert: কপি হবেনা যে !!