মুক্তিযোদ্ধার যথাযথ চিকিৎসা না হওয়ার অভিযোগ

নকলা উপজেলার প্রবীণ আইনজীবী বীরমুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট শাহ মোঃ জমশেদ আলী মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে ঢাকার শেরে বাংলা নগরস্থ পঙ্গু হাসপাতালের নতুন ভবনে ৬৬৪ নম্বর বেডে চিকিৎসাধীন আছেন। একজন বীরমুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তিনি যথাযথ চিকিৎসা পাচ্ছেন না বলে তার পারিবারিক সুত্র দাবি করেছে।

বীরমুক্তিযোদ্ধা ও ময়মনসিংহ বারের প্রবীণ এ সদস্য গত ১ সেপ্টেম্বর সিএনজি যোগে শেরপুর থেকে নকলা আসার পথে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় তার বাম পা ভেঙে চুরমার হয়ে যায়।

এডভোকেট শাহ মোঃ জমশেদ আলী একজন প্রবীন আইনজীবি এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা হলেও তার কোন ছেলে সন্তান নেই, স্ত্রী মারা গেছেন অনেক আগেই। ৩ মেয়ে বিয়ে দিয়ে ফেলেছেন ফলে তার পারিবারিক জীবন দুঃসহনীয়। তার কোন সহায় সম্পদ নেই, মুক্তিযোদ্ধার ভাতা এবং ওকালতির মাধ্যমে উপার্জিত অর্থেই তার নিজ সংসার পরিচালনা ও মেয়েদের দেখাশুনা করতেন। আহত অবস্থায় তিনি হাসপাতালের সাধরন বেডে কাতরাচ্ছেন, তার অর্থও নেই, দেখা শুনা করার মানুষও নেই। তার বড় মেয়ের জামাই জামিরুল ইসলাম রানা অভিযোগ করে বলেন “আমার শ্বশুর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে ফ্রী চিকিৎসা পাচ্ছেন তবে তা খুবই নিম্নমানের, এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে কোন ক্যাবিন দেয়নি, চিকিৎসার জন্য কোন বোর্ড গঠন করেনি বা উন্নত চিকিৎসার কোন ব্যাবস্থা করেনি। অর্থ সংকটের কারনে আমরাও উন্নত চিকিৎসা করাতে পারছিনা।

এডভোকেট জমশেদ আলীর ছোট ভাই বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহ মোঃ জুলহাস উদ্দিন, এ ব্যাপারে স্থানীয় এমপি ও সাবেক কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী এবং মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকের আশু দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।