বিএনপি প্রেস ব্রিফিংয়ে ভাঙ্গা রেকর্ড বাজায়

স্বাধীনতার মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে যে কটূক্তি করে সে কি সত্য কথা বলে? প্রশ্নটি করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। গতকাল শনিবার ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেন, সত্য কথা বলার জন্য সরকার বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারপারসন তারেক রহমানের প্রচারণা বন্ধ করে দিয়েছে। এই কথাটির পরিপ্রেক্ষিতে কাদের আরও বলেন তারা (বিএনপি) অপপ্রচার ও মিথ্যাচারে অভ্যস্ত এবং সেটাই তারা যখন প্রেস ব্রিফিং করে তখন ভাঙ্গা রেকর্ড বাজায়। আর যখন পত্রপত্রিকা স্টেটমেন্ট দেয় তখন মিথ্যাচার আর অপপ্রচারে ভরে থাকে। তাদের বক্তব্য, এখানে সত্য কোনটি আছে? সত্য কথা কী? বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে যে কটাক্ষ করে সে কি সত্য কথা বলে? এটা আমাদের আজকে বুঝতে হবে। আজ রোববার দুপুরে কক্সবাজারের উখিয়ার বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন ও রোহিঙ্গাদের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণকালে খালেদা জিয়ার বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় গণমাধ্যমে প্রশ্নটি করেছেন মন্ত্রী।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাদের বলেন, আর সাহস, সত্য কথা বলার জন্য সাহস লাগে। সাহস তো নেই। সাহস থাকলে দেশে এসে সত্য কথা বলুন। স্বদেশে সত্য কথা বলার সাহস দেখান। জেল-জুলুম তো রাজনীতিতে থাকবেই। যে জেল-জুলুমকে ভয় পায় সে কোনোদিন বড় নেতা হতে পারে না। যত চেষ্টায় বেগম জিয়া, যত উত্তরাধিকার বানাতে চান। যে জেল-জুলুমকে ভয় পায়, যে দেশে আসতে সাহস পায় না সে কীভাবে বড় নেতা হবে? সড়ক পরিবহনমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গাদের নিরাপদ প্রত্যাবাসনের লক্ষে কাজ করছে বাংলাদেশ। পর্যটন ও প্রতিবেশ রক্ষার স্বার্থে রোহিঙ্গাদের ফিরে না যাওয়া পর্যন্ত তাদের একটি অংশকে ভাসানচরে সরিয়ে নেওয়া হবে। এই সংকট মোকাবিলায় বিশ্বে জননেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন প্রশংসিত হয়েছে, তখন বিএনপি সরকারের সমালোচনায় ব্যস্ত। কারণ বিএনপি নির্বাচনে আসতে ভয় পায়। ইস্যুটি নিয়ে সারা বিশ্ব বাংলাদেশের পাশে রয়েছে। রোহিঙ্গাদের সম্মানের সঙ্গে পূর্ণ নাগরিকতা পাওয়ার ব্যবস্থা করেই মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো হবে। এ সময় মন্ত্রীর সঙ্গে দলের সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম, মাহফুজুর রহমান রোটন উপস্থিত ছিলেন। মন্ত্রী এর আগে সকালে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে সড়ক পরিবহণ ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় কমিটির সভায় যোগদান করেন।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের