You dont have javascript enabled! Please download Google Chrome!

নকলায় গড়ে উঠেছে গ্রামীণ ইকোপার্ক

ইকো পার্ক মানেই জীব বৈচিত্র আর পাখ-পাখালি ও গাছ-গছালি’র সমাহার। তবে একটু ব্যাতিক্রমি ইকো পার্ক গড়ে উঠেছে শেরপুরের নকলায়। প্রায় ৭ একর জমি’র উপর কেবল মাত্র ধূ ধূ ও উত্তপ্ত বালু জমিতে গড়ে উঠেছে এ ইকো পার্কটি। যেখানে কোন রকমের গাছ-গাছালি তো দুরের কথা লতা-গুল্মও জন্মাতো না সেখানে কৃষি বিভাগের বিজ্ঞানীরা নানা কৌশল আর গবেষনা করে জন্মিয়েছে আম, জাম, লিচু, কলা, কাঁঠাল, পেঁপে, পেয়ারা, বরই, আতা, তাল, ছফেদাসহ দেশীয় বিভিন্ন প্রজাতি’র ফলদ এবং বিভিন্ন ওষুধী ও বনজ প্রায় শতাধিক প্রজাতি’র আড়াই হাজার বৃক্ষ।

প্রথম পর্যায় ওই বালু জমিতে কোন গাছের চারা রোপন করলে ক’দিন পর তা মরে যেতো। দীর্ঘ প্রায় ৪ বছর গবেষনা করে ওই ইকোপার্কে প্রথম বিভিন্ন প্রজাতি’র গাছের চারা লাগিয়ে সফল হয় কৃষি বিভাগের বিজ্ঞানীরা। এরপর শুরু হয় ইকো পার্ক গড়ার কাজ।

জেলা কৃষি বিভাগ সূত্রে জানাগেছে, জেলার নকলা উপজেলার উরফা ইউনিয়নের উরফা কোদাল দোয়া গ্রামের উপর দিয়ে বয়ে গেছে পাহাড়ি ভোগাই ও কালা গাঙ্গ নদী। ২০০৯ সালে তৎকালে বর্তমান কৃষি মন্ত্রী ভোগাই নদীর উপর রাবার ড্যাম নির্মান এবং নদী’র নব্যতা বৃদ্ধির জন্য নদী খননের কাজ করেন। যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত না থাকায় নদী খননের বালু ভোগাই ও কালা গাঙ্গের মোহনার তীরে স্তুপাকারে রেখে দেয়। পরবর্তিতে ওই বালুর স্তুপের উপর প্রায় সাড়ে তিন একর জমিতে কেবল মাত্র স্থানীয় গ্রামবাসী’র জন্য ফলদ ও বনজ বৃক্ষ রোপন করে জীব বৈচিত্র তৈরীর জন্য ইকো পার্ক নির্মানের পরিকল্পনা করেন কৃষি মন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী।

কিন্তু ওই উত্তপ্ত ও ধূ ধূ বালুর মধ্যে প্রথম কয়েক বছর কোন গাছ তো দুরের কথা কোন রকমের লতা-গুল্ম জন্মাতো না। এতে থেমে থাকেনি কৃষি বিভাগের বিজ্ঞানীরা। জামালপুরের হার্টিকালচার বিভাগ এবং বাংলাদেশ কৃষি সম্পসারণ বিভাগের সাবেক মহা পরিচালক মো. এনামূল হক ওই ইকো পার্কে গাছ জন্মানোর চ্যালেঞ্জ নিয়ে নানা গবেষনা করে বিশেষ কায়দায় অবশেষে প্রায় ৪ বছর পর সফল হয়। এরপর আস্তে আস্তে ২০১৪ সালে ওই ইকো পার্কে রোপন করা হয় দেশীয় বিভিন্ন প্রজাতি ফলদ, ওষুধী ও বনজ প্রায় ২ হাজার ৫ শতাধিক গাছের চারা। বর্তমানে ওই ইকো পার্কের বেশ কয়েকটি গাছে ফল ধরতে শুরু করেছে। পাশাপাশি দেশীয় নানা প্রজাতির পাখ-পাখালি’র অভয়ারন্যও স্মৃষ্টি হয়েছে। আর ইকে পার্কের গাছ গুলোকে সতেজ ও জীবন্ত রাখতে সার্বক্ষনিক দু’জন শ্রমিক নিয়োগ করেছেন কৃষি বিভাগ।

এদিকে ছায়া ঘেরা ইকো পার্কের মনোরম পরিবেশ দেখতে জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে ছুটে আসছে বিভিন্ন পেশার মানুষ-জন। ইকো পার্কের তিন পাশ দিয়ে নদী বয়ে যাওয়ায় কোদাল দোয়া বাজার থেকে নৌকা করে নদী পার হয়ে পৌছতে হয় পার্কে। স্থানীয়রা নদীর উপর ব্রীজ নির্মানের দাবী জানালেও কৃষি বিভাগ জানায়, কৃষি মন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী’র ইচ্ছে এখানে বানিজ্যিক বা প্রাতিষ্ঠানিক ভাবে কোন স্থাপনা তৈরী না করে একেবাড়েই প্রকৃতির মতো ন্যাচারাল ইকো পার্ক গড়ে উঠোক এটি। যাতে জীব বৈচিত্রের এবং পাখির অভয়াশ্রমের কোন সমস্যা যাতে না হয়। তবে ভবিষ্যতে পার্কে যাতায়াতের জন্য এখানে একটি ফুট ব্রীজ নির্মানের পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানালেন জেলা কৃষি বিভাগের উপ পরিচালক মো. আশরাফ উদ্দিন।

কৃষি বিভাগের সাবেক মহা পরিচালক এবং ওই ইকো পার্কের বৃক্ষ জন্মানোর গবেষক মো. এনামুল হক বলেন, আমরা অনেক চেষ্টা করেও ওই বালুর মধ্যে কোন গাছ জন্মাচ্ছিল না। তাই আমরা অনেক গবেষনা করে বিশেষ কায়দায় মাটি থেকে ৬ থেকে ১০ ইঞ্চি গভির করে এবং গাছের চারার পারপাশে ৩ থেকে ৫ ইঞ্চি ফাঁক রেখে চারাগুলো রোপন করার পর বালুর তাপ থেকে রক্ষা পেয়ে চারা গুলো বাড়তে শুরু করে। এক পর্যায় ওই ইকো পার্কের সকল চারা সতেজ হয়ে উঠে এবং বর্তমানে বেশ বড় হয়ে উঠেছে। অনেক গাছে ফলও ধরতে শুরু করেছে। এ পদ্ধতি আমাদের কৃষি বিভাগের একটি সাফল্য হিসেবে আমি মনে করি। আশাকরি আগামি ৫ বছরের মধ্যে ইকো পার্কটি আরো সবুজ হয়ে উঠবে এবং এখানে দেশীয় নানা পাখ-পাখালি’র আবসস্থল হয়ে উঠবে। আর ফলদ বৃক্ষ থেকে এলাকাবাসী দেশীয় নানা ফল খেতে পাবে।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের

error: Alert: কপি হবেনা যে !!