You dont have javascript enabled! Please download Google Chrome!

দেশে প্রতি বছর আট লাখ বেকার বাড়ছে

 

প্রতি বছর ২১ লাখ মানুষ দেশের শ্রম বাজারে প্রবেশ করছে। এর বিপরীতে চাকরি তৈরি হচ্ছে ১৩ লাখ। আর কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি না হওয়ায় প্রতি বছর আট লাখ নতুন বেকার তৈরি হচ্ছে। দেশে উচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জন হলেও পর্যাপ্ত কর্মসংস্থান তৈরি হচ্ছে না। গতকাল রবিবার রাজধানীর একটি হোটেলে গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) আয়োজিত অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধি ও নতুন সরকারের জন্য অগ্রাধিকার শীর্ষক সংলাপে এ তথ্য তুলে ধরা হয়।

সিপিডির চেয়ারম্যান অধ্যাপক রেহমান সোবহানের সভাপতিত্বে সংলাপে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। বিশেষ অতিথি ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মুহিবুল হাসান চৌধুরী। সিপিডির সম্মাননীয় ফেলো অধ্যাপক ড. মুস্তাফিজুর রহমানের সঞ্চালনায় প্যানেল আলোচনায় অংশ নেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী, বাংলাদেশ মেডিক্যাল এসোসিয়েশনের (বিএমএ) সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ড. রশিদ-ই-মাহবুব প্রমুখ।

অধ্যাপক রেহমান সোবহান বলেন, শিক্ষা খাতে গুরুত্ব দিয়ে পূর্ব এশিয়ার তাইওয়ান, সিঙ্গাপুর, চীনের মতো দেশগুলো এগিয়ে গেছে। আমাদের শিক্ষাখাতে বরাদ্দ বাড়ছে কিন্তু মানসম্পন্ন শিক্ষার ঘাটতি রয়েছে।

সামাজিক নিরাপত্তাখাতে ব্যয়ের ৯০ ভাগ সঠিকখাতে যাচ্ছে এমন দাবি করে পরিকল্পামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, কিছু চুরি-চামারি হচ্ছে ঠিক, কিন্তু এখন গ্রামের মানুষও প্রশ্ন তুলে, তারাও এসব বিষয়ে সরব হয়।

মুক্ত আলোচনায় অংশ নিয়ে সাবেক অর্থমন্ত্রী এম সাইদুজ্জামান বলেন, এক সময় বলা হতো দারিদ্র্যকে মিউজিয়ামে পাঠানো হবে, কিন্তু এখন আর সেটি বলা যাচ্ছে না। রাশেদা কে চৌধুরী বলেন, আমরা অসাম্প্রদায়িক, ধর্মনিরপেক্ষ সমাজ গঠনের কথা বলি কিন্তু পাঠ্যপুস্তকে নন-সেকুলার বিষয়গুলো রয়ে গেছে।

শিক্ষা উপমন্ত্রী মুহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, আমরা ধর্মনিরপেক্ষতা ও অসাম্প্রদায়িক চেতনার বিষয়ে কোনো আপস করবো না। তিনি বলেন, স্কুল কমিটির ব্যবস্থাপনায় পরিবর্তন আনা হবে। পাশাপাশি শিক্ষাখাতকে রাজনীতিকরণ করা যাবে না। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী ভালো উদ্যোগ নেন কিন্তু তার আসে-পাশে যারা থাকেন তারা তাকে ভুল পথে পরিচালিত করেন। প্রধানমন্ত্রী বললেন, যে ডাক্তাররা কর্মস্থলে থাকবেন না তাদের ওএসডি করা হবে। এডমিন ক্যাডার হলে এই সিদ্ধান্ত ঠিক ছিল কিন্তু ডাক্তার ওএসডি হলে এটা তাদের জন্য আরো ভালো হয়। কারণ এই সময়ে তারা প্রাইভেট প্রাকটিসের মতো কাজগুলো আরো ভালোভাবে করতে পারে। তিনি বলেন, কর্মস্থলে ডাক্তাররা থাকেন কিনা এটা দেখা হয়, কিন্তু কখনও দেখা হয় না বিচারকরা কর্মস্থলে থাকেন কিনা। তারা বৃহস্পতিবার কর্মস্থল থেকে চলে যান, সোমবার গিয়ে অফিস করেন।

সূত্র: ইত্তেফাক

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের

error: Alert: কপি হবেনা যে !!