You dont have javascript enabled! Please download Google Chrome!

দুই যুগেও চালু হয়নি শ্রীবরদী কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল

দুই যুগ পরও চালু হয়নি শেরপুরের শ্রীবরদী উপজেলার কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল। রোদ-বৃষ্টিতে কষ্ট করে যাত্রীদের রাস্তা থেকেই উঠতে হয় বাসে। ফলে পরিত্যক্ত এ টার্মিনালটি এখন নানা কাজে ব্যবহার হচ্ছে।

শেরপুর জেলা পরিষদের অধীনে ১৯৯৪ সালে শ্রীবরদী-শেরপুর আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে ৫০ শতাংশ জমিতে জেলা পরিষদের তত্ত্বাবধানে নির্মিত হয় শ্রীবরদী উপজেলা কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল।

যাত্রীছাউনি, বিশ্রামের ব্যবস্থাসহ সব সুযোগ-সুবিধা থাকলেও কর্তৃপরে উদাসীনতার কারণে দুই যুগেও টার্মিনালটি চালু না হওয়ায় এটি পরিত্যক্ত পড়ে আছে। মাঝে মাঝে দু-একটি যানবাহন বাইরে থেকে আসা টার্মিনালের ভেতরে পরিষ্কার করতে দেখা যায়। একাধিক যাত্রী ও সাধারণ মানুষ জানান, দীর্ঘদিন ধরে টার্মিনালটি ব্যবহার না করায় ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন তারা।

উপজেলা শ্রমিক লীগের আহ্বায়ক আবু জাফর বলেন, চৌরাস্তা মোড়ে সব যানবাহন এলোমেলোভাবে না রেখে নির্দিষ্ট বাস টার্মিনালেই রাখার ব্যবস্থা করা উচিত।

উপজেলা ট্রাক, মিনি ট্রাক, ট্যাংক লরি ও কাভার্ড ভ্যান চালক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আব্দুল জলিল বলেন, এ উপজেলায় ট্রাকের নির্দিষ্ট টার্মিনাল দরকার। টার্মিনাল না থাকায় এলোমেলোভাবে গাড়িগুলো রাখা হয়। এতে করে যানজট লেগেই থাকে।

উপজেলা মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আবুল কাসেম জানান, বাস টার্মিনালটি একটু দূর হওয়ায় যাত্রীরা ওখানে যেতে চান না। তাদের সুবিধার জন্যই চৌরাস্তা মোড়েই কাউন্টার রাখা হয়েছে।

এ বিষয়ে শ্রীবরদী পৌরসভার মেয়র আবু সাঈদ জানান, কয়েক দিনের মধ্যেই নতুন করে টেন্ডারের মাধ্যমে টার্মিনালটি চালুর উদ্যোগ নেওয়া হবে।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের

error: Alert: কপি হবেনা যে !!