দুই মাসেও গ্রেফতার হয়নি শ্রীবরদীতে ভাগনেকে বিষ খাইয়ে হত্যা চেষ্ঠা মামলার আসামী খালা

প্রায় দুই মাস পেরিয়ে গেলেও গ্রেফতার হয়নি ভাগনেকে বিষ খাইয়ে হত্যা চেষ্ঠা মামলার প্রধান আসামী খালা রিয়া। শেরপুরের শ্রীবরদী উপজেলার গোসাইপুর ইউনিয়নের বালিয়াচন্ডি গ্রামে সারোয়ার হোসেন নামে ৬ মাস বয়সি শিশুকে বিষ খাইয়ে হত্যা চেষ্টার অভিযোগে গত ৭ মে রাতে ওই শিশুটির মা সুমি বেগম শ্রীবরদী থানায় মামলা দায়ের করলেও অজানা কারণে প্রায় দুইমাস পেরিয়ে গেলেও গ্রেফতার হয়নি মামলার প্রধান আসামী খালা রিয়া । যদিও পুলিশ বলছে আসামীকে গ্রেফতারের চেষ্ঠা চলছে তবে কোথাও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছেনা তাকে ।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায় , শ্রীবরদী উপজেলার গোসাইপুর ইউনিয়নের বালিয়াচন্ডি গ্রামের ছামিউল হকের আত্বীয় আব্দুর রহমানের মেয়ে রিয়া (১৯) পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী গত ৩০ এপ্রিল বিকেলে তার নিজ বাড়িতে এসে ছামিউলের ৬ মাস ১০ দিন বয়সের শিশু পুত্র সারোয়ার হোসাইনকে কোলে নিয়ে পার্শ্ববর্তী পুকুর পাড়ে যায়। এসময় রিয়া সেখানে শিশু সারোয়ারের মুখে বিষ ঢেলে দিলে শিশুটি চিৎকার চেচামেচি ও বমি করতে থাকে।

এমতাবস্তায় রিয়া শিশুটির মা সুমি বেগমের কাছে নিয়ে গিয়ে বলেন, সারোয়ার বমি করছে। এ কথা শুনে সুমি বেগম সারোয়ারকে কোলে নিলে তার মুখ দিয়ে বিষের গন্ধ পায়। এতে সুমি বেগমের ডাক চিৎকারের বাড়ির অন্যান্য আত্বীয়-স্বজন ছুটে আসে এবং সারোয়ারকে নিয়ে প্রথমে শ্রীবরদী ও পরে শেরপুর জেলা হাসপাতালে ভর্তি করেন। এরপর সারোয়ারের অবস্থা অবনতি হলে ওই দিন রাতেই তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এদিকে শিশু সারোয়ারের বাড়ি’র লোকজন যখন তাকে নিয়ে হাসপাতালে ছুটাছুটি করছে ঠিক সেসময় পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী রিয়া ও তার অন্যান্য অত্বিয়রা সুমি বেগমের ঘরে প্রবেশ করে ঘরে রাখা নগদ টাকা ও প্রায় ১৬ ভরি স্বর্নালংকার চুরি করে নিয়ে যায় বলে মামলারএজাহারে অভিযোগ করেছেন ওই শিশুটির মা ও মামলার বাদী সুমি বেগম ।

এদিকে শিশু সারোয়ার কিছুটা সুস্থ হলে ঘটনার ২ দিন পর সুমি বেগম বাড়ি ফিরলে দেখতে পায় তার ঘরের স্বর্নালংকার ও নগদ টাকা নেই। প্রাথমিক ভাবে আশপাশের লোকজনের মাধ্যমে জানতে পারে এ ঘটনার সাথে শিশুটিকে হত্যার চেষ্টার পরিকল্পনাকারী রিয়া ও তার আত্বীয়রা জড়িত।

পরে ৭ মে সুমি বেগম বাদী হয়ে রিয়া ও তার মা-বাবা, ভাইসহ ৫ জনকে আসামী করে শ্রীবরদী থানায় একটি হত্যা প্রচেষ্টা ও চুরি’র অভিযোগে মামলা দায়ের করেন। তবে ইতিমধ্যে এ মামলার প্রধান আসামী রিয়া ছাড়া সকলেই আদালত থেকে জামিন নিয়ে নেয় এবং ঘটনার মূলহোতা ওই শিশুটির খালা রিয়াকে বাঁচাতে মারিয়া হয়ে বিভিন্ন মহলে তদবীর করছে।

এদিকে ঘটনার প্রায় দুইমাস পেরিয়ে গেলেও অজানা কারণে প্রধান আসামী রিয়াকে গ্রেফতার করছেনা পুলিশ। যদিও পুলিশ বলছে খোজেঁ পাওয়া যাচ্ছেনা বলেই গ্রেফতার করা হচ্ছেনা অভিযুক্ত রিয়াকে ।

শিশুটির মা সুমি বেগম জানান , আমার ছয়মাসের শিশুকে বিষ খাইয়ে হত্যার চেষ্ঠা করা হলো অথচ মামলার প্রধান আসামীকে দুইমাস পেরিয়ে গেলেও পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি । আসামীরা জামিন নিয়ে নিলো কিন্তু তার আগে একবারও আসামীদের ধরতে পুলিশ অভিযান চালাইনি । আমি শেরপুরের পুলিশ সুপার মহোদয়ের কাছে ন্যায় বিচার প্রার্থনা করি । আমরা আইনের প্রতিশ্রদ্ধাশীল ।

এব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শ্রীবরদী থানার ওসি (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ জানান, আমি ঢাকায় টেনিং এ আছি। বাদী পক্ষের সহযোগিতা ছাড়া তো আসামী গ্রেফতার করা সম্ভব না । তারপরও আমি যে আসামীরা পলাতক আছে তাদের গ্রেফতারের চেষ্ঠা করছি এবং দ্রুতই প্রতিবেদন দাখিল করবো ।

অন্যদিকে শ্রীবরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি ) মো. রেজাউল করিম জানান, বিষ প্রয়োগে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে কিনা তা জানার জন্য ঢাকার সিআইডিতে ফরেনসিক টেষ্ট পাঠানো হয়েছে তার রিপোর্ট পেলে পরবর্তী প্রদক্ষেপ গ্রহন করা হবে । আর মামলার ৪ আসামী আদালত থেকে জামিন নিয়েছে তবে প্রধান আসামী পলাতক থাকায় এখনো গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। গ্রেফতারের চেষ্ঠা চলছে ।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের