You dont have javascript enabled! Please download Google Chrome!

ঝিনাইগাতীতে ৮ হাজার হতদরিদ্র পাচ্ছেন ভিজিএফ’র চাল

পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার ৮হাজার ২৩৩জন হতদরিদ্র জনপ্রতি ২০ কেজি করে ভিজিএফ’র চাল পাচ্ছেন। কিন্তু চাহিদার চেয়ে অপ্রতুল বরাদ্দের কারণে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা তালিকা প্রণয়ন করতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন বলে জানা গেছে। এ নিয়ে ক্ষুব্ধ হয়েছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার (পিআইও) কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এ উপজেলায় প্রায় দুই লাখ মানুষের বসবাস। যার প্রায় ৩৯ শতাংশ মানুষ অতিদরিদ্র। এদের মধ্যে ভূমিহীন, প্রান্তিক এবং ক্ষুদ্র কৃষকের সংখ্যাই বেশী। কিন্তু ঈদুল আযহা উপলক্ষে সরকার দরিদ্রদের সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী কার্যক্রম ভালনারেবল গ্রুপ ফিডিং (ভিজিএফ) কর্মসূচির আওতায় ৮হাজার ২৩৩জন হতদরিদ্রের জন্য জনপ্রতি ২০ কেজি করে চাল বরাদ্দ এসেছে। গত রমজান ঈদে জনপ্রতি ১০ কেজি চাল বিতরণ করা হলেও এবার ২০ কেজি করে চাল পাবেন কার্ডধারীরা।

উপজেলার কান্দুলী আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দা মো. মহির উদ্দিন জানান, ‘প্রত্যেক ঈদের আগে চাল পান। গত রমজান ঈদে ১০কেজি চাল পাইছিলেন। এবার এই ঈদে সরকার গতবারের চেয়ে বরাদ্দ কম দেওয়ায় তার চাল না পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান তিনি।’

হাতিবান্দা ইউনিয়নের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. নুরুল আমিন দোলা জানান,‘তার ইউনিয়নের ৬০ শতাংশ লোক দরিদ্র। এবার ঈদে ৮২৪জন হতদরিদ্র লোকের জন্য ভিজিএফ’র চাল বরাদ্দ পেয়েছেন। কিন্তু তার নিকট ৩হাজারের অধিক নারী-পুরুষ জাতীয় পরিচয় পত্র জমা দিয়েছেন ভিজিএফ’র তালিকায় অন্তভুক্ত হওয়ার জন্য। ফলে তালিকা প্রণয়নে হিমশিম খাচ্ছে বলে জানান তিনি।’

কাংশা ইউনিয়নের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. জহুরুল ইসলাম জানান, ‘তার ইউনিয়নে ভোটার সংখ্যা প্রায় ২০হাজার। সীমান্তঘেঁষা ইউনিয়ন হওয়ায় তার ১৭টি এলাকার প্রায় ৬০ শতাংশ লোকই অতিদরিদ্র। কিন্তু ভিজিএফ’র চাল বরাদ্দ পেয়েছেন মাত্র ১হাজার ২৮২জন লোকের জন্য যা চাহিদার চেয়ে অপ্রতুল বলে জানান তিনি।’

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মো. রাকিবুল ইসলাম ভিজিএফ’র চাল চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল স্বীকার করে বলেন, ‘এ উপজেলায় ঈদুল আযহা উপলক্ষে সরকার ভিজিএফ কর্মসূচির আওতায় ৮হাজার ২৩৩জন হতদরিদ্রের জন্য জনপ্রতি ২০ কেজি করে চাল বরাদ্দ এসেছে। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রালনায় দরিদ্র ও জনসংখ্যার বিভাজন করে যে পরিমাণে ভিজিএফ বরাদ্দ দেয়। আমরা সেই পরিমাণই দিয়ে থাকি। এখানে আমাদের কিছু করার নেই।’

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের

error: Alert: কপি হবেনা যে !!