ঝিনাইগাতীতে বাল্যবিবাহ নিবন্ধন করায় একজনের কারাদন্ড

শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে বাল্যবিবাহ নিবন্ধনের অভিযোগে মো. আব্দুল বাসেত (৪৫) নামে এক কাজী সহকারীকে (সহকারী নিকাহ নিবন্ধক) ২০ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমান আদালত।

গতকাল সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রুবেল মাহমুদ এ সাজা দেন। বাসেত উপজেলার সুড়িহারা গ্রামের মো. আলীর ছেলে। আজ মঙ্গলবার দুপুরে তাকে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার হাতিবান্দা ইউনিয়নের লয়খা গ্রামের সদ্য এসএসসি উত্তীর্ণ এ কিশোরীর (১৬) সঙ্গে একই গ্রামের এক যুবকের বিয়ে হয়। ওই বিয়ের নিবন্ধন করেন কাজী সহকারী বাসেত।

সরকারী আইনানুযায়ী ১৮ বছরের নিচে বাল্যবিবাহ নিষিদ্ধ ও কাজী সহকারী বিয়ে নিবন্ধন করতে পারে না। কিন্তু কাজী সহকারী বাজেত আইন অমান্য করে ওই বাল্যবিবাহের নিবন্ধন করেন। পরে খবর পেয়ে ইউএনও রুবেল মাহমুদ ওই বিয়ে বাড়িতে গিয়ে
ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে বাসেতকে ২০ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন।

এব্যাপারে ঝিনাইগাতী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রুবেল মাহমুদ কারাদন্ড প্রদানের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বাল্যবিবাহের স্বীকার ওই কিশোরীর বয়স ১৮ বছর পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত তাকে শুশ^র বাড়িতে পাঠাতে পারবেন না মর্মে অভিভাবকের নিকট মুচলেকা গ্রহণ করা হয়েছে।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের