ঘুরে আসুন মুহুরী প্রজেক্ট

একদিকে পাহাড় আর অপরদিকে সমুদ্র নিকটবর্তী অরণ্য; সঙ্গে নদী, ঝরনা, বন্যপ্রাণী, প্রকৃতির রূপ বৈচিত্র্যময় সম্পদে সমৃদ্ধময় এক জনপদ মিরসরাই। এর খুব কাছেই  দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম সেচ প্রকল্প ‘মুহুরী প্রজেক্ট’। প্রকল্পের বিভিন্ন অংশ এবং এর পারিপার্শ্বিক প্রাকৃতিক অনাবিল নৈসর্গিক শোভা যে কোনো পর্যটককে আকর্ষিত করতে পারে।

এক সময় ছিল মুহুরি প্রকল্পের স্থানে ছিল দুই মাইল প্রশস্ত নদী। এপার ওপার ছিল বিচ্ছিন্ন। ফেনী নদী এবং মুহুরি নদীর দু’তীরকে সেচ সুবিধার আওতায় আনার মাধ্যমে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে গৃহীত পরিকল্পনা মোতাবেক ১৯৭৭-৭৮ অর্থবছরে এই প্রকল্পের নির্মাণ কাজ শুরু হয়। গত আড়াই দশকে মুহুরী প্রজেক্টকে ঘিরে পিকনিক স্পট ও বিনোদন কেন্দ্র তৈরি করা হয়েছে। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পর্যটকরা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে পূর্ণ মুহুরী প্রজেক্টে আনন্দময় সময় কাটাতে আসে।

ফেনীর সোনাগাজীর মুহুরী সেচ প্রকল্পকে আকর্ষণীয় পর্যটন ও বিনোদন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার তাগিদ দিয়েছেন ফেনী জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুজজামান। জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে ফেনী পানি উন্নয়ন বোর্ডের উদ্যোগে ‘ইরিগেশন ম্যানেজমেন্ট ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্ট ও মুহুরী ইরিগেশন প্রজেক্টের’ সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি বলেন, সোনাগাজী মুহুরী প্রজেক্টকে আকর্ষণীয় পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার সুযোগ রয়েছে। এটি আকর্ষণীয় ও সুন্দর জায়গা। বেশি বেশি করে গাছ লাগিয়ে পরিবেশ সুন্দর করা যায়। এতে পর্যটকরা আকৃষ্ট হবে। বিভিন্ন জায়গা থেকে পর্যটকেরা এখানে ঘুরতে আসে।

স্লুইস গেট

স্লুইস গেট

বিভিন্ন নদী ও খালে অবৈধ দখল ও বাঁধ দিয়ে পানি প্রবাহ বাধাগ্রস্থ করার বিষয় উল্লেখ করে জেলা প্রশাসক পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, যে কোনো সমস্যা নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। যে এলাকায় উন্নয়ন কাজ হবে সেসব এলাকায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের সহযোগিতা গ্রহণ করবেন। মানুষের উপকারার্থে কাজ করুন।

যাওয়া-থাকা

ফেনী লালপোল থেকে মিল্লাত, ফারাবি ট্রান্সপোর্ট, জয় এবং প্রতিশ্রুতি পরিবহনের বাসে সোনাগাজী উপজেলা সদরে আসতে হবে। এরপর সেখান থেকে সিএনজি ভাড়া করে মুহুরী প্রজেক্ট যেতে পারবেন। কিংবা সোনাগাজী উপজেলা সদর থেকে বাসে বাদামতলী এসে রিকশা ভাড়া করে মুহুরী প্রজেক্ট পৌঁছাতে পারবেন।

মুহুরী প্রজেক্টের কাছেই রয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ডাক বাংলো। এছাড়া রাতে থাকতে পারবেন মুহুরি প্রজেক্ট থেকে ২০ কিলোমিটার দূরের সোনাগাজীতে অবস্থিত জেলা পরিষদ ডাক বাংলো এবং নাসির রেষ্টুরেন্ট অ্যান্ড আবাসিক হোটেলে। ফেনী শহরেও থাকতে পারেন, সেখানে বেশকিছু ভালো মানের হোটেল রয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।