You dont have javascript enabled! Please download Google Chrome!

গিনেস বুকে নাম লেখাচ্ছে জামালপুরের ‘জয় বাংলার’ পাগল!

জামালপুর জেলা সদর তুলনামুলকভাবে বেশী শান্তিপ্রিয়।এখানে সংঘাত, ত্রাস, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ইত্যাদির প্রাদূর্ভাব কম। এখানে যেমন রয়েছে রাজনৈতিক সহাবস্থান, তেমনই রয়েছে পারস্পরিক সৌহার্দ্যপূর্ন সম্পর্ক। ছোট এই শহরের প্রায় সবাই একে অপরের মুখ চেনা।

শহরের পাথালিয়া থেকে টিউবওয়েল পাড়, রসিদপুর থেকে ছনকান্দা একটি পাগলকে সারাদিন চলফেরা করতে দেখা যায়। একবার এদিক, আরেকবার ওদিক। তার শুধু একটাই কাজ, রাস্তা দিয়ে যাবে আর বারবার বলতে থাকবে,”জয় বাংলা।জয় বঙ্গবন্ধু।

তার নাম জানেনা কেউ! আমিও না! তবে ওর একটা নাম রেখেছিলাম ,”জয় বাংলার পাগল”। এই নামেই সে এখন গোটা শহর কিংবা শহর ছাড়িয়ে দুরে… সর্বত্র একনামেই পরিচিত। নিঃসন্দেহে গিনেস বুকে ওর নামটা উঠতে পারতো,যদি কাউন্ট করা হতো, সে দিনে কতবার” জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু “বলে।কিংবা জীবনে সে যতবার “জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু ” বলেছে এটাও একটা বিশ্ব রেকর্ড হতে পারে।

পরনে ভালো কাপড় নেই, পেটে ক্ষুধা, ঘর নেই বাড়ি নেই তবুও তার মুখে হাসির কমতি নেই। বেশী চাওয়া পাওয়া নেই তার। খুব জোর করে আপনি তাকে একটা রুটি, ফ্রি ভাজি আর এক কাপ চা খাওয়াত পারবেন। তবে সে আপনাকে আগেই বলে নেবে, আমি কিন্তু “জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু ” এর বদলে কিছু খাইনা। জোরে জোরে চিৎকার করে মাঝে মাঝে বলবে,”বঙ্গবন্ধু জাতির পিতা”।

গতরাতে হঠাৎ দেখা শহরের দয়াময়ী মোড়ে।দেখেই স্বভাবসুলভ ভঙ্গীতে,”জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু “।কাছে এসে বললো,দাদা আমারে এডা গান শিখান যায়না? আমি বললাম, তোরে দিয়ে গান হবেনা!

মনটা একটু খারাপ হলো ওর। আবার বললো,দাদা আফনে ত কত লেহালেহি করেন, আমার ছবিটা পেপারে ছাপাইয়া দিয়ন যায়না? উত্তরে আমি বললাম, দেখি চেষ্টা করে।

শেষে বললাম আমি ওয়ান ,টু, থ্রী বললেই তুই বলবি,”জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু “।যেই কথা সেই কাজ।মানুষ অন্তর থেকে যা করে তার জন্য মহড়া দিতে হয়না। আমি একবারই ক্লিক করলাম ক্যামেরাতে।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের

error: Alert: কপি হবেনা যে !!