করোনা সারাবে ম্যালেরিয়ার ওষুধ!

 

করোনা ভাইরাস আতঙ্কে কাঁপছে সমগ্র বিশ্ব। গবেষকরা এর ঔষধ আবিষ্কারের জন্য উঠেপড়ে লেগেছেন। বেশকিছু গবেষণাই অনেক দূর এগিয়ে যাওয়ার খবর পাওয়া গেলেও এখনো সফল হয়নি কোনোটিই। এরইমধ্যে আলোচনায় এসেছে গত শতাব্দীর ৪০-এর দশকের একটি ঔষধ। বলা হচ্ছে, ক্লোরোকুইন নামের ম্যালেরিয়ার ওই ঔষধেই সারবে করোনার সংক্রমণ। এ খবর দিয়েছে বিজনেস ইনসাইডার।

খবরে বলা হয়, ক্লোরোকুইন নামের ওই ঔষধটি বাজারে আসে ১৯৪৪ সালে। ম্যালেরিয়া আক্রান্তদের সুস্থ করে তুলতে এটি ব্যবহৃত হতো। ম্যালেরিয়া এক ধরনের পরজীবীর আক্রমণ থেকে হয়।

করোনা ভাইরাস থেকে তার বৈশিষ্ট্য সমপূর্ণ আলাদা। তারপরেও গবেষণা বলছে যে, ক্লোরোকুইন কার্যকরভাবে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ করতে সক্ষম। একইসঙ্গে এটি সার্স ও কভিড-১৯সহ করোনার সকল ধরনের বিরুদ্ধে শরীরে কাজ করছে। এ নিয়ে পরীক্ষা চলছে।

১৯৪৯ সালে যুক্তরাষ্ট্র ক্লোরোকুইনকে অনুমোদন দেয়। পশ্চিমা গণমাধ্যমগুলো বলছে, যখন বিশ্বজুড়ে কয়েক ডজন ঔষধ কোমপানি করোনার প্রতিষেধক আবিষ্কারে উঠেপড়ে লেগেছে তখন এই কয়েক যুগ আগের ঔষধটিই হতে পারে মানুষের রক্ষাকবজ। তবে এ বিষয়ে নিশ্চিত হতে আরো সময় লাগবে। ফ্রান্সের একদল গবেষক এ নিয়ে বলেন, যদি গবেষণার তথ্য আবারো এর কার্যকারিতা নিশ্চিত করে তাহলে করোনা ভাইরাস নির্মূলে এটিই হবে সব থেকে সস্তা চিকিৎসা। এটি ব্যবহারের ৬ দিনের মধ্যে আক্রান্ত ব্যক্তি সুস্থ হয়ে উঠবে বলেও জানিয়েছেন তারা।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।