You dont have javascript enabled! Please download Google Chrome!

এবার শেরপুরের প্রতিটি পূজা মন্ডবে থাকবে কালো ব্যানার

শেরপুরে মন্দিরে মন্দিরে প্রতিটি পূজা মন্ডবে থাকবে শোক প্রকাশের কালো ব্যানার কারণ মায়ানমারের আরকানে রোহিংগা মুসলিমদের প্রতি যে অবিচার,জুলুম-নির্যাতন,খুন-ধর্ষনসহ নানা মানবতা বিরোধী নির্যাতন করা হচ্ছে তারই প্রতিবাদে এবার শেরপুরের প্রতিটি পূজা মন্ডবে তাদের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশের জন্য কালো ব্যানার টানানো হবে বলে এমন তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি দেবাশীষ ভট্টাচার্য। তিনি ১৮ সেপ্টেম্বর সোমবার দুপুরে এ প্রতিবেদককে দেয়া সাক্ষাতকারে এ কথা জানান ।

এদিকে মন্দিরে মন্দিরে চলছে শেষ মূহুর্তে প্রতিমাদের শেষ রংঙের আঁচড়।এছাড়া পূজা অর্চনার অন্যান্য কার্যাদির প্রস্তুতিও প্রায় শেষ । ২৬ সেপ্টেম্বর ষষ্টি পূজার মধ্যদিয়ে শুরু হচ্ছে শারদীয় দূর্গা পূজা । শেষ প্রস্তুতিতে মন্ডপে মন্ডপে চলছে প্রতিমার গায়ে রঙের কাজ, অলংকরণ ও মন্ডপ সাজানোর ডেকারেশন এবং আলোক সজ্জার কাজ।

জেলায় এবার সদর উপজেলায় ৭৮ টি, নালিতাবাড়ীতে ৩৫টি, নকলায় ১৬টি, ঝিনাইগাতীতে ১৪ টি ও শ্রীবরদীতে ৮ টি মোট ১৫১টি মন্ডপে শারদীয় দূর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। দূর্গতিনাশিনী দেবী দুর্গার আগমনী বার্তায় ভক্তকূলে আনন্দের জোয়ার সৃষ্টি হয়ে থাকে।
এ কারণে পাল পাড়ায় বইছে এখন শারদীয় এ উৎসবের হাওয়া। ব্যস্ত সময় পার করছে প্রতিমা শিল্পীরা । কাদা-মাটি, বাঁশ, খড়, সুতলি দিয়ে শৈল্পিক ছোঁয়ায় তিলতিল করে গড়ে তোলা দেবী দুর্গার প্রতিমা তৈরিতে দিনরাত ব্যস্ত সময় পার করছেন পুরুষের পাশাপাশি নারী কারিগররাও। প্রতিমা তৈরির পর শুরু হয়েছে রূপায়নের কাজ। রঙ-তুলির শৈল্পিক আঁচড়ে ফুটিয়ে তোলা হবে দেবীর মনকাড়া প্রতিচ্ছবি। তাই যেনো ঘুম নেই প্রতিমা কারিগরদের। মনের আনন্দে ভক্তির সঙ্গে চলছে প্রতিমা পার্বণের প্রস্তুতি।

এব্যাপারে জেলা পূজা উদযপন পরিষেদের সভাপতি দেবাশীষ ভট্রাচায জানান, রোহিংগা মুসলিমদের প্রতি যে অবিচার করা হয়েছে তার প্রতিবাদে প্রতিটি মন্ডবে থাকবে কালো ব্যানার । আশা করছি প্রশাসনের সহযোগিতা থাকলে খুব সুন্দরভাবে শেষ হবে শারদীয় দূর্গা উৎসব । তবে আমি ব্যক্তিগত ভাবে প্রশাসনকে অনুরোধ করবো যে মন্ডবেই মাদকের ব্যবহার হোক না কেন তারা যেন আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করেন এবং পরিবেশ স্থিতিশীল রাখতে দ্রুত ভূমিকা গ্রহন করেন।

এদিকে পূজা মন্ডপে নিরিবিচ্ছিন্ন ভাবে যাতে পূজা উদযাপন করতে পারে যে জন্য আইনশৃংখলা বাহীনিও রয়েছে সরব । পূজা উপলক্ষে কয়েক স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে এবং কোন ধরণের ঝামেলা ছাড়াই এবারের দূর্গাৎসব শেষ হবে বলে জানালেন শেরপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(সদর সার্কেল) মো.আমিনুল ইসলাম।

পরিশেষে রঙ-তুলির শৈল্পিক আঁচড়ে ফুটিয়ে তোলা মনকাড়া দেবীর প্রতিচ্ছবির মতই সবকিছুর আনুষ্ঠানিকতা শেষে সম্পন্ন হবে দূর্গোৎসব এমনটাই প্রত্যাশা শেরপুরের সকল হিন্দু সম্প্রদায়ের দেবীভুক্তকুলের ।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের

error: Alert: কপি হবেনা যে !!