ইতিহাস গড়ল বাংলাদেশ; সাক্ষী শেরপুরের মেয়ে জ্যোতি

নাঈম ইসলাম : ইতিহাস গড়ল বাংলাদেশের নারী ক্রিকেট দল। এশিয়া কাপে ৬ বারের চ্যাম্পিয়ন ভারতকে তিন উইকেটে হারালো লাল সবুজ প্রমিলা বাহিনী। আর এই জয়ে সাক্ষী শেরপুরের মেয়ে নিগার সুলতানা জ্যোতি।

রোববার কুয়ালামপুরের কিনরারা একাডেমির ওভাল স্টেডিয়ামে স্বগৌরবে উড়ল বাংলাদেশের পতাকা। ভারতের ছুড়ে দেয়া ১১৩ রানের চ্যালেঞ্জ তাড়া করতে নেমে বাংলাদেশকে দারণ সূচনা এনে দেন দুই ওপেনার শামীমা সুলতানা এবং আয়েশা রহমান। পাওয়ার প্লের ৬ ওভার থেকে বিনা উইকেটে ৩৩ রান করে বাংলাদেশ। ইনিংসের সপ্তম ওভারে এই জুটি ভাঙেন ভারতীয়দের সেরা বোলার পুনম। ওভারের শেষ দুই বলে দুই ওপেনারকেই সাজঘরে পাঠিয়ে দেন পুনম। দুই ওপেনার শামীমা ১৬ এবং আয়েশা করেন ১৭ রান। পরে দলের হয়ে ৩য় তম ব্যাট হাতে মাঠে নামা ফারজানা হকের ১১ রানে সাজঘরে ফিরে যাওয়ার পর নিগার সুলতানার ব্যাটের তান্ডবের উপর ভর করে দলীয় সর্বোচ্চ ২৪ বলে তার ২৭ রান বাংলাদেশ দলকে জয়ের প্রান্তে পৌছাতে গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

উল্লেখ্য, নিগার সুলতানা জ্যোতি ১ আগস্ট ১৯৯৭ সালে শেরপুর জেলায় জন্মগ্রহণকারী বাংলাদেশের প্রথিতযশা প্রমিলা ক্রিকেটার। শেরপুর শহরের রাজবল্লভপুর মহল্লার সিরাজুল হক ও সালমা দম্পতির মেয়ে জ্যোতি।
বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য তিনি। দলে তিনি মূলতঃ উইকেট-কিপারের দায়িত¦ পালন করে থাকেন। পাশাপাশি ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবেও নিগার সুলতানা দলে ভূমিকা রাখছেন।

৬ অক্টোবর, ২০১৫ তারিখে স্বাগতিক পাকিস্তানের বিপক্ষে তার ওডিআই অভিষেক ঘটে। করাচীতে অনুষ্ঠিত ঐ খেলায় তিনি দু’টি বাউন্ডারি সহযোগে অপরাজিত ৩০* রান সংগ্রহ করেছিলেন। এর পূর্বে ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ তারিখে একই দলের বিপক্ষে করাচীতে অনুষ্ঠিত টি-২০ আর্ন্তজাতিকে অভিষিক্ত হন তিনি।

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ তারিখে আইসিসি বিশ্ব টি-২০ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের লক্ষ্যে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড কর্তৃক ঘোষিত মহিলা দলে তিনিও অন্যতম সদস্য মনোনীত হন। ১৫ মার্চ, ২০১৬ তারিখে বেঙ্গালুতে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী খেলায় ভারতের বিপক্ষে অপরাজিত ২৭* রান করেন ।

তথ্যসূত্র: উইকপিডিয়া, প্রথম আলো।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের