You dont have javascript enabled! Please download Google Chrome!

আমরা যদি না জাগি মা কেমনে সকাল হবে

 

আঁধার যেন কাটতেই চাইছে না। তাই ভাঙছে না ঘুম। আবার জাগতে চাইলেও শোনানো হচ্ছে ঘুম পাড়ানি গান, কখনো দেখানো হচ্ছে শাসনের বেয়নেট। যে কারণে প্রলম্বিত হচ্ছে রাত। মূলত যার নাম আঁধার। এই আঁধারে হাবুডুবু খাচ্ছে জাতি, দেশ। এর নেপথ্য কারণ গভীর ঘুম আর জড়তা।

আমরা ছাত্র-শিক্ষক ৫২তে জেগে ছিলাম বলে মায়ের ভাষা রক্ষা করতে পেরেছিলাম, শিক্ষা-স্বাধিকার এর জন্য জেগে ছিলাম বলে ৭১ -এ একটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র পেয়েছি । আশির দশকের জাগরণীতে গণতন্ত্র পেয়েছি । ক্ষুদ্র এ দেশের বিপুল জনগোষ্ঠীকে মানব সম্পদে রূপান্তরিত করতে পারলেই বিশ্ব দরবারে মাথা উচু করে দাঁড়াতে পারব। উন্নত দেশের কাতারে নাম লেখাতে, মানুষের জীবন মান বাড়াতে এর বিকল্প নেই । সরকার ভিশন ২১ ঘোষণা করে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে ইতি মধ্যেই ব্যাপক কার্যক্রম হাতে নিয়েছে। যার অন্যতম প্রধান উদ্যোগ হল শিক্ষা ব্যবস্থায় উল্ল্যেখযোগ্য পরিবর্তন নিয়ে আসা ।

আঁধারের ওড়না গুটিয়ে ফেললেই উঁকি দেয় প্রভাতের রবি। এই প্রভাত প্রতিটি সৃষ্টির জন্যেই নিয়ে আসে তৃপ্তিদায়ক আনন্দ। পীড়াদায়ক সংবাদ হলো এমন আনন্দ এখনো অধরাই থেকে যাচ্ছে। তিন চার যুগ পার করে এসেও আঁধারেই ডুবে আছে নাক অবধি এ দেশ, এ জাতি। ঘুমে অচেতন থাকলে যা ঘটে। অঘটন ঘটন পটীয়সী নাকি এ মুল্লুকের মানুষ। এমন গুজব প্রায়শই শ্রুত হয়। এরপরও আঁধার ঘুচে না কপালের। শুধু কলহ বিবাদ দিবস-রজনী।

আঁধারের ওড়না গুটিয়ে ফেললেই উঁকি দেয় প্রভাতের রবি। এই প্রভাত প্রতিটি সৃষ্টির জন্যেই নিয়ে আসে তৃপ্তিদায়ক আনন্দ। পীড়াদায়ক সংবাদ হলো এমন আনন্দ এখনো অধরাই থেকে যাচ্ছে। তিন চার যুগ পার করে এসেও আঁধারেই ডুবে আছে নাক অবধি এ দেশ, এ জাতি। ঘুমে অচেতন থাকলে যা ঘটে। অঘটন ঘটন পটীয়সী নাকি এ মুল্লুকের মানুষ। এমন গুজব প্রায়শই শ্রুত হয়। এরপরও আঁধার ঘুচে না কপালের। শুধু কলহ বিবাদ দিবস-রজনী।

সরকার ১৭ বছর পর সঙ্গতিপূর্ণ নতুন টেক্সবুক চালু করেছে, কোটি কোটি শিক্ষার্থীর হাতে বিনামূল্যে পাঠ্যপুস্তক তুলে দিচ্ছে হাজার হাজার স্কুল-কলেজে ল্যাপটপ মাল্টিমিডিয়া বিতরণ করেছে । শিক্ষার উৎকর্ষ সাধনে, শিখন শেখানো কার্যক্রম স্থায়ী, আনন্দদায়ক ও বিদ্যালয়ের শিখন পরিবেশ শিশুদের জন্য নিরাপদ করতে পারদর্শী ও দক্ষ শিক্ষক গড়ে তোলায় নানা প্রয়াস নিয়েছে। যেমন- SESDP প্রজেক্টের মাধ্যমে সৃজনশীল প্রশ্ন প্রণয়ন, পরিশোধন ও উত্তরপত্র মূল্যায়ন বিষয়ক ট্রেনিং ইতিমধ্যেই সম্পন্ন হয়েছে। সারাদেশে সকল শিক্ষকের হাতে শিক্ষক ডায়েরী দেওয়া হয়েছে। TQI এর অধীনে সিপিডি-১, সিপিড-২, ক্লাস্টার ট্রেনিং A2i এর অধীনে ICT ট্রেনিং এবং সেকআইএফ ট্রেনিং কোনটি সমাপ্ত আর কোনটি চলছে, রয়েছে শিক্ষার্থীদের জন্য সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ কর্মসূচী । এ ছাড়াও বেসরকারী বিভিন্ন প্রজেক্ট রয়েছে। ২৫ হাজার ওয়েভসাইট সম্বলিত এক বিশাল ওয়েভপোর্টাল জাতীর সামনে দেওয়া হয়েছে। শিক্ষকদের জন্য একটি সমৃদ্ধ শিক্ষামূলক সাইট ‘শিক্ষক বাতায়ন’ দিয়েছে । সীমিত সাধ্যের মধ্যে আমাদের জন্য এ বিশাল আয়োজনে আমরা কতটা প্রস্তুত দায়িত্ব নিতে ?

ঘুমে অচেতন থাকলে সর্বনাশ ধেয়ে আসে চারদিক থেকে। লোপাট হয় সহায় সম্পদ, আটকে যায় বুদ্ধি-বিবেচনা। এমন এক অসহায় অবস্থায় জাতির ভবিষ্যৎ, দেশের ভবিষ্যৎ। স্বপ্ন থাকে অন্ধকারে নিমজ্জমান। রাতের পরিধি দীর্ঘ হয়। এই দীর্ঘ রাতের আবর্তে দেশ, দেশের মানুষ। একটি প্রত্যাশিত প্রভাতের জন্য চাই জাগরণ। সুবিবেচনার জাগরণ, সুভাবনার জাগরণ, সুবিবেকের জাগরণ, সুবুদ্ধির জাগরণ, সুবিচারের জাগরণ, সুশাসনের জাগরণ, সর্বোপরি সুশক্তির জাগরণ।

আফসোসের বিষয় সমগ্র জাতি যেন এক কালনিদ্রায় আচ্ছন্ন। কোথাও জাগরণের শব্দ নাই। যে জাগরণের সাথে ‘সু’ শব্দটি যুক্ত। তাই জাতীয় কবির কণ্ঠে কণ্ঠ মিলিয়ে বলতে হয়- ‘আমরা যদি না জাগি মা কেমনে সকাল হবে/তোমার ছেলে উঠলে গো মা রাত পোহাবে তবে।’ প্রত্যাশিত প্রভাতের জন্য সেই সাহসী ছেলের অপেক্ষা ব্যতীত আর কি বা উপায় আছে ?

 

(মুক্তমতে প্রকাশিত লেখার দায় সম্পূর্ণ লেখকের। শেরপুর টাইমস ডট কম কোনভাবেই এই লেখার সাথে জড়িত নয়।)

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের

error: Alert: কপি হবেনা যে !!