আট বছরে শেরপুর টাইমস ও আমার কিছু কথা

প্রভাষক মহিউদ্দিন সোহেল :

শেরপুরের পাঠক প্রিয় ও জেলার প্রথম জেলাভিত্তিক অনলাইন গণমাধ্যম শেরপুর টাইমস আজ ৮ম বর্ষে পা দিয়েছে। এটি আমার জন্য যেমন খুব আনন্দদায়ক আবার কিছুটা বেদনাদায়কও বটে। গেল এ কয়েকটা বছর নিজের সন্তানের মতো আগলে রাখা গণমাধ্যমটি এখন আর্থিক সংকটের পাশাপাশি সহ্য করছে নানা প্রতিকুলতা । সহযোগিতা-অহযোগিতার অন্তজালে হরহামেশায় যাতনায় পুড়ছি । ভেঙ্গে পড়ি, আবার উঠে দাড়াই, নবউদ্যোমে শুরু হয় পথযাত্রা ,এভাবেই চলছি….. । পাঠক আর হতাশার কথা শুনাতে চাইনা।

সীমিত জনবল নিয়ে বিশেষ গোষ্ঠির আর্থিক সহায়তা ছাড়া মাত্র আট বছরে শেরপুর টাইমস যে সফলতা অর্জন করেছে তা রীতিমতো ঈর্ষণীয়। শেরপুর টাইমসের সংবাদকর্মীদের কঠোর পরিশ্রম, মমত্ব বোধ সঙ্গে তাদের একান্ত আন্তরিকতা ছাড়া এ অনলাইন পত্রিকাটির পাঠক প্রিয়তা বাড়ানো কোনভাবেই সম্ভব ছিল না। এ জন্যে এ গণমাধ্যমটির একজন ক্ষুদ্রকর্মী হিসেবে মেধাবী সেসব সংবাদকর্মী ও সম্পাদনা পরিষদের প্রতি আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

যখন একটি স্থানীয় অনলাইন গণমাধ্যম আট বছরে পা দেয়, তখন মানবজীবনের রূপক টেনে এ কথা তো বলাই যায় যে, সে প্রাপ্তবয়স্কের পথে। কিন্তু খামখেয়ালী বশে এমন কথা বলা খুব ছেলেমানুষি হবে, কারণ একটি গণমাধ্যমকে প্রায় প্রথম থেকেই প্রাপ্তবয়স্কতা দেখাতে হয়। তার পক্ষে হামাগুড়ি-দেয়া শৈশব থেকে যৌবনে পৌঁছানোর এই সুযোগ থাকে না, পাঠকরা কোনো কোনভাবেই অপরিণত অবস্থাকে ক্ষমা করে না। ফলে প্রথম থেকেই তাকে কোমর বেঁধে নামতে হয় এবং প্রথম রাতেই বিড়াল মেরে শুরু করতে হয়। ‘শেরপুর টাইমস’ যে এমন শুরু করতে পেরেছিল তার প্রমাণ তার আট বছরে পৌঁছে যাওয়া।

বিশ্বব্যাপী সংবাদমাধ্যম এখন চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন। শেরপুর টাইমসের সামনেও অনেকগুলো চ্যালেঞ্জ আছে বলে আমি মনে করি। আজকাল আইসিটি আইন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মাধ্যমে সংবাদমাধ্যমকে নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চলছে। সমাজে বেড়েছে অসহিষ্ণুতা । সমাজের সর্বত্র অসহিষ্ণুতা প্রকট রূপ নিয়েছে। এর ফলে গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ হারিয়ে যাচ্ছে। যুক্তির বদলে জবরদস্তি চলছে। এই পরিবেশে শেরপুর টাইমস কেন যেকোনো সংবাদমাধ্যমের পক্ষে গণতন্ত্র, সুশাসন ও মানবাধিকারের পক্ষে দাঁড়ানোর কাজটি খুব কঠিন। তবে হাল ছেড়ে দিতে চায়না শেরপুর টাইমস।

সংবাদ পরিবেশনে বস্তুনিষ্ঠতা, দায়িত্বশীলতা, নিরপেক্ষতা বজায় রেখে শেরপুরের সংস্কৃতি, ইতিহাস, ঐতিহ্য ও মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সমুন্নত রেখে আমাদের পথচলায় পরিচালনা পরিষদ বিশেষ করে গণমাধ্যমটির প্রকাশক,শেরপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক তরুন শিল্পপতি আনিসুর রহমান, সম্পাদক শাহরিয়ার মিল্টন, উপদেষ্টা সম্পাদক রফিক মজিদ, ব্যবস্থাপনা সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সাবিহা জামান শাপলা, বার্তা সম্পাদক এম.সুরুজ্জামান, প্রধান প্রতিবেদক সুজন সেন,স্নেহের অনুজ ইমরান,শাকিল,মনির ,নাইম,জুয়েল,প্রিয়ভাজন রমেশ সরকারসহ সবার সহযোগিতা কামনা করছি। বলতে চাই ভালবাসা জানবেন,ভালবাসায় রাখবেন।

৭ বছর আগে যখন এর যাত্রা শুরু হয়, সেই সময় থেকেই সঙ্গে ছিলাম, আজও আছি সহযোদ্ধা হয়ে । এটি আমার জন্য আনন্দময় অনুভূতি। এগিয়ে যেতে চাই শেরপুরবাসীকে সাথে নিয়ে,তুলে ধরতে চাই প্রিয় শেরপুরের প্রতিটি গ্রামের খবর । ন্যায়ের পক্ষে ও অন্যায়ের বিরুদ্ধে আগের মতোই সোচ্চার থাকবো, এটাই এই ৭ বছর পূর্তির প্রত্যাশা।

লেখক :
নির্বাহী সম্পাদক, শেরপুর টাইমস।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।